জুমাদাল উখরা ১৪৩৮ . মার্চ ২০১৭

পুরোনো সংখ্যা . বর্ষ: ১৩ . সংখ্যা: ০৩

সকল প্রশ্ন-উত্তর »

আপনি যা জানতে চেয়েছেন

  • ৪০৩৩ . মিনহাজ মুনাওয়ার . ফটিকছড়ি, চট্টগ্রাম
    প্রশ্ন:

     

    কুরবানীর দিন এলাকার লোকজন নিজ নিজ পশু যবাইয়ের জন্য আমার চাচাকে নিয়ে যায়। এখন তিনি বৃদ্ধ হয়ে গেলেও লোকজন তবুও আসে। চাচা তাদের মন রক্ষার্থে গেলেও একা যবাই করতে পারেন না। তাই আমাকে সাথে নিয়ে যান। চাচা বিসমিল্লাহ বলে একটু ছুরি চালিয়ে দিলে বাকিটুকু আমি করে দিই। জানার বিষয় হল, চাচার বিসমিল্লাহ পড়াই যথেষ্ট হবে? নাকি আমাকেও বিসমিল্লাহ পড়তে হবে?

     


     

    উত্তর:

    প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে আপনাকেও বিসমিল্লাহ পড়তে হবে। অন্যথায় যবাই সহীহ হবে না। কেননা এক্ষেত্রে আপনিও যবাইকারী। আর যবাইকারী একাধিক হলে প্রত্যেকেরই বিসমিল্লাহ বলা জরুরি। অবশ্য প্রথম জবাইকারী যদি জবাই সম্পন্ন করে ফেলেঅর্থাৎ স্বাশনালীখাদ্যনালী এবং দুই শাহরগের কোন একটি কেটে ফেলেএরপর দ্বিতীয় ব্যক্তি ছুরি চালায় সেক্ষেত্রে তার জন্য বিসমিল্লাহ পড়া জরুরি নয়। এক্ষেত্রে প্রথম ব্যক্তির দ্বারাই জবাই সম্পন্ন হয়ে যায়। সুতরাং পরবর্তীতে কেউ যদি ছুরি চালায় তাহলে জবাইকারীর অন্তর্ভুক্ত হবে না। তাই সে বিসমিল্লাহ না বললেও কোনো ক্ষতি হবে না।

    -ফাতাওয়া খানিয়া ৩/৩৫৫; ফাতাওয়া তাতারখানিয়া ১৭/৪৪৯; আদ্দুররুল মুখতার ৬/৩৩৪
  • ৪০১০ . মাসউদ আহমাদ . ফেনী
    প্রশ্ন:

    কয়েক দিন আগের কথা। বিতরের নামাযে দাঁড়ানো অবস্থায় আমি সন্দেহে পড়ে যাই যে, দ্বিতীয় রাকাতে আছি না তৃতীয় রাকাতে? কোনোটাই স্থির করতে পারছিলাম না। তখন ঐ রাকাতকে দ্বিতীয় রাকাত ধরেই নামায শেষ করেছি। তাই ঐ রাকাতে কুনূত না পড়ে পরের রাকাতে পড়েছি। এবং শেষ বৈঠকে সাহু সেজদা করেছি। এতে আমার নামায সহীহ হয়েছে কি ?

     

    উত্তর:

    প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে কোন্টি শেষ রাকাত সে বিষয়ে আপনি যেহেতু নিশ্চিত হতে পারছিলেন না, তাই আপনার জন্য উভয় রাকাতেই কুনূত পড়া উচিত ছিল। এবং প্রত্যেক রাকাতের পর বৈঠক করা কর্তব্য ছিল। এক্ষেত্রে যে কোনো রাকাতই শেষ রাকাত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে আপনি যেহেতু সাহু সেজদা করেছেন তাই আপনার নমায সহীহ হয়ে গেছে।

    -আলমুহীতুল বুরহানী ২/২৭২; আলবাহরুর রায়েক ২/৪১; শরহুল মুনয়া পৃ. ৪২১; রদ্দুল মুহতার ২/৯৪
  • ৪০১১ . সাইফূল ইসলাম . ওয়েব সাইট থেকে প্রাপ্ত
    প্রশ্ন:

    সেদিন এক ব্যক্তির মুখে শুনলাম, রমযান মাসে নাকি এমন একটি নামায আছে, যা আদায় করলে সারা জীবনের সকল কাযা নামায মাফ হয়ে যায়। হুযুরের কাছে জানতে চাই, সেটি কোন্ নামায? তা আদায়ের কী পদ্ধতি?

    উত্তর:

    রমাযানে বিশেষ নামায পড়লে সারা জীবনের কাযা নামায মাফ হয়ে যায় এমন কথা সহীহ নয়। এটা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও মনগড়া কথা। কুরআন-হাদীসের কোথাও এমন কথা নেই। এ সম্পর্কে যে বর্ণনাটি উল্লেখ করা হয় তা বানোয়াট ও জাল। মোল্লা আলী ক্বারী রাহ. ঐ বর্ণনাটি উল্লেখ করে বলেন, ‘এটি সম্পূর্ণ বাতিল কথা। কেননা এটা উম্মাহ্র ঐক্যমত্যের পরিপন্থী। এমন কোনো ইবাদত নেই, যার দ্বারা অনেক বছরের কাযা মাফ হয়ে যায়। (আলমাওযুআতুল কুবরা, পৃষ্ঠা ২৪২) বরং অনেক হাদীসে সুস্পষ্ঠভাবে এসেছে যে, কারো কোনো নামায ছুটে গেলে তার কর্তব্য হল তা কাযা করা। যত ওয়াক্ত নামায ছুটবে প্রত্যেক ওয়াক্তের জন্য আলাদা কাযা আদায় করতে হবে।  এক হাদীসে আছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন,

    مَنْ نَسِيَ صَلاَةً فَلْيُصَلِّ إِذَا ذَكَرَهَا، لاَ كَفَّارَةَ لَهَا إِلَّا ذَلِكَ.

    কারো যদি ভুলে কোনো নামায ছুটে যায় তাহলে যখন স্মরণ হবে তখন যেন সে তা আদায় করে নেয়। এর থেকে দায়মুক্তির ভিন্ন কোন কাফফারা নেই। -সহীহ বুখারী, হাদীস : ৫৯৭

    অতএব এক নামায দ্বারাই জীবনের সকল কাযা মাফ হয়ে যাবে এমন ধারণা ভ্রান্ত ও হাদীস পরিপন্থী। এমন ধারণা পোষণ করা থেকে বিরত থাকা আবশ্যক।

  • ৪০১২ . আরেফীন মাহমুদ . লালমনিরহাট
    প্রশ্ন:

    একদিন জুমার নামাযের আগে আমার রুমে পড়তে পড়তে ঘুম এসে যায়। সবাই মনে করেছে আমি মসজিদে গিয়েছি। সুতরাং কেউ আমাকে জাগায়নি। যখন আমি সজাগ হই তখন দ্রুত রওয়ানা দেই এবং নিয়ত করে বসা মাত্রই ইমাম সাহেব সালাম ফিরিয়ে দেন। আমি দাঁড়িয়ে মাসবুকের ন্যায় নামায পূর্ণ করি। জানতে চাই আমার ঐ জুমার নামায কি আদায় হয়েছে?

     

    উত্তর:

    প্রশ্নোক্ত ক্ষেত্রে ইমামের সালাম ফিরানোর আগেই যেহেতু আপনি জুমার নামাযে শরীক হয়েছেন তাই আপনার জুমার নামায সহীহ হয়েছে। হযরত শুবা রাহ. বলেন,

    سَأَلْتُ الْحَكَمَ، وَحَمَّادًا، عَنِ الرَّجُلِ يَجِيءُ يَوْمَ الْجُمُعَةِ قَبْلَ أَنْ يُسَلِّمَ الْإِمَامُ، قَالَا: يُصَلِّي رَكْعَتَيْنِ.

    আমি হাকাম ও হাম্মাদ রাহ.-কে এমন ব্যক্তি সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলাম, যে জুমার দিনে ইমামের সালাম ফিরানোর আগে (জুমার নামাযে) উপস্থিত হয়েছে। উত্তরে তারা বললেন, সে দুই রাকাত নামায আদায় করবে। (মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা, হাদীস ৫৩৯৮)

    -মুসান্নাফে আবদুর রাযযাক, হাদীস ৪৫৭৮; আলমাবসূত, সারাখসী ২/৩৫; বাদায়েউস সনায়ে ১/৫৯৯; ফাতহুল কাদীর ২/৩৫; রদ্দুল মুহতার ২/১৫৭
  • ৪০১৩ . আবু নাসের . নোয়াখালী
    প্রশ্ন:

    আমি মাঝেমধ্যে ফরয নামায একাকী পড়ার সময় তৃতীয় ও চতুর্থ রাকাতে ভুলক্রমে সূরা ফাতেহার সাথে অন্য সূরা মিলিয়ে ফেলি। এতে করে আমার নামাযে কোনো সমস্যা হবে কি?

     

     

     

     

    উত্তর:

    ফরযের তৃতীয় ও চতুর্থ রাকাতে সূরা না মিলানোই সুন্নত। তাই ইচ্ছাকৃত সূরা মিলাবে না। ভুলে হয়ে গেলে অসুবিধা নেই। এ কারণে সাহু সিজদা আসবে না।

    উল্লেখ্য, মনোযোগ সহকারে নামায পড়া উচিত। নামাযে প্রায় ভুল হওয়া উদাসীনতার লক্ষণ। এ ব্যাপারে সচেতন হওয়া কর্তব্য।

    -আলমুহীতুল বুরহানী ২/৩১০; তাবয়ীনুল হাকায়েক ১/৪৭৪; আলবাহরুর রায়েক ১/২৯৬; শরহুল মুনইয়াহ ৩৩১; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/১২৬; রদ্দুল মুহতার ১/৫১১

সম্মানিত পাঠক!
মাসিক আলকাউসারের ওয়েব পেজটির উন্নয়ন কাজ চলছে। তাই বর্তমান সংখ্যাটি হালনাগাদ করতে বিলম্ব হচ্ছে। আপনাদের সাময়িক অসুবিধার জন্য আমরা আন্তরিকভাবে দুঃখিত।

হজ্ব এবং কুরবানী বিষয়ক প্রবন্ধসমূহ