শাওয়াল ১৪৩৩ . সেপ্টেম্বর ২০১২

পুরোনো সংখ্যা . বর্ষ: ০৮ . সংখ্যা: ০৮

ঈদ-ভাবনা আমরা মুসলিম : কত মহান আমরা, কত দীন

বরাবরের মতো এবারও আমরা উদযাপন করেছি ঈদুল ফিতর। খুব ভোরে ঘুম থেকে উঠেছি। ফজরের নামায পড়েছি। গোসল করেছি। মিষ্টিমুখ করেছি এবং আতর-গোলাবে সুরভিত হয়ে ঈদগাহে গমন করেছি। উচ্চ-নীচের ভেদাভেদ ভুলে এক কাতারে ঈদের নামায পড়েছি, একসাথে বসে খুৎবা শুনেছি এবং পরস্পর কুশল ও সৌজন্য বিনিময় করেছি। এদিন হয়তো কিছু পরিমাণে হলেও জেগেছিল আমাদের আত্মপরিচয়ের বোধ এবং ভ্রাতৃত্বের চেতনা।

 

আমার শাশ্বত পরিচয় তো এই-‘বল, আমার নামায, আমার কুরবানী এবং আমার জীবন ও আমার মরণ আল্লাহরই জন্য, যিনি সমগ্র বিশ্বের প্রতিপালক। তাঁর কোনো শরীক নেই। এ আদেশই আমাকে করা হয়েছে এবং আমি সর্বপ্রথম আজ্ঞাবাহী।’-সূরা আনআম : ১৬২-১৬৩ 

আমরা তো অনুসারী এক মহান দ্বীনের-‘নিশ্চই দ্বীন আল্লাহর নিকট এই ইসলাম ...।’-সূরা আলে ইমরান (৩) : ১৯ 

‘যে কেউ ইসলাম ছাড়া অন্য কোনো দ্বীন অন্বেষণ করবে তার থেকে তা কখনো কবুল করা হবে না। আর আখেরাতে সে হবে  

ক্ষতিগ্রস্ত।’-সূরা আলে ইমরান (৩) : ৮৫

‘তার চেয়ে উত্তম দ্বীন কার হতে পারে, যে সৎকর্মপরায়ণ হয়ে আল্লাহর আদেশের সামনে আত্মসমর্পণ করেছে এবং একনিষ্ঠ ইবরাহীমের দ্বীন অনুসরণ করেছে। এবং আল্লাহ ইবরাহীমকে বন্ধুরূপে গ্রহণ করেছেন।-সূরা নিসা (৪) : ১২৫

‘ঐ ব্যক্তির চেয়ে কার কথা উত্তম, যে আল্লাহর দিকে আহবান করেছে, সৎকর্ম করেছে এবং বলেছে, আমি মুসলিম ...।’-সূরা হা-মীম আসসাজদা (৪১) : ৩৩

আমরা তো ধারক এক সুপ্রাচীন ও চিরনবীন ঐতিহ্যের-‘সমস্ত মানুষ একই ধর্মে-ছিল। তারপর (তাদের মাঝে বিভেদ হল এবং সত্য-মিথ্যা প্রকাশের জন্য) আল্লাহ নবীগণকে সুসংবাদদাতা ও সতর্ককারীরূপে প্রেরণ করলেন এবং তাদের সাথে সত্য কিতাব নাযিল করলেন, মানুষের মাঝে সেই বিষয়ে মীমাংসা করার জন্য যা নিয়ে তারা মতবিরোধ সৃষ্টি করেছিল!’-সূরা বাকারা (২) : ২১৩

‘আর এই উপদেশই দিয়ে গেছেন ইবরাহীম তার সন্তানদেরকে এবং ইয়াকুবও যে, হে আমার সন্তানগণ! নিশ্চয়ই আল্লাহ তোমাদের জন্য দ্বীন নির্বাচন করেছেন। কাজেই তোমরা যেন ঐ অবস্থাতেই মৃত্যুবরণ কর যখন তোমরা মুসলিম।’-সূরা বাকারা (২) : ১৩২

সুতরাং এ তো বলাই-বাহুল্য যে, এটিই একমাত্র সত্যের পথ।

‘আমাদের কতক আত্মসমর্পণকারী আর কতক সীমালংঘনকারী; যারা আত্মসমর্পণ করে তারা সুচিন্তিতভাবে সত্যপথ গ্রহণ করেছে। পক্ষান্তরে সীমালংঘনকারীরা তো জাহান্নামের ইন্দ্বন।’-সূরা জিন : ১৪-১৫

এই মহান সত্য হৃদয়ে ধারণ করেই তো আমরা এই প"থিবী থেকে বিদায় নিতে চাই।

‘হে মুমিনগণ! তোমরা আল্লাহকে ভয় করে চল, যেমন তাঁকে ভয় করা উচিত। আর মুসলিম না হয়ে মৃত্যুবরণ করো না।-সূরা আলে ইমরান (২) : ১০২

আমাদের এই সত্য-সম্পদই তো পৃথিবীর অন্যান্য জাতি-গোষ্ঠীকে ঈর্ষাকাতর করে তুলেছে। মুসলিম হওয়ার ‘আপরাধেই’ আজ আমাদের রক্ত ঝরছে, অশ্রু ঝরছে। এ আমাদের দীনতা নয়। আমাদের দীনতা এই যে, আমরা আমাদের যন্ত্রণাকাতর ভাই-বোনের পাশে দাঁড়াতে পারিনি। সবযুগেই সত্যপন্থীর রক্ত ঝরেছে। মিথ্যাপন্থী দাম্ভিকেরা নির্যাতন-নিপীড়নে তাদের ধ্বংস করতে চেয়েছে এবং তাদেরকে সন্ত্রাসী ও দুষ্কৃতিকারী আখ্যা দিয়ে নিজেদের দুষ্কৃতি ঢাকতে চেয়েছে।’

‘ফিরাউন বলল, আমার অনুমতির আগেই তোমরা তার প্রতি ঈমান আনলে। নিশ্চয় এটা এক চক্রান্ত, যা তোমরা সবাই মিলে এ নগরে করেছ। যাতে এর অধিবাসীদের এখান থেকে উচ্ছেদ করতে পার। তবে তোমরা শীঘ্রই জানতে পারবে।’

‘আমি অবশ্যই তোমাদের হাত ও বিপরীত দিকের পা কেটে ফেলব, এরপর তোমাদের সকলকে শূলে চড়াব।’

‘তারা বলল, আমাদের তো আপন প্রতিপালকের নিকট ফিরে যেতেই হবে। আমাদের প্রতি তোমার শত্রুতা শুধু একারণেই যে, আমরা আমাদের প্রতিপালকের নিদর্শনাবলীতে ঈমান এনেছি; যখন  আমাদের কাছে পৌঁছেছে। হে আমাদের প্রতিপালক! আমাদের উপর ধৈর্যের ঢাকনা খুলে দাও এবং আমাদের মৃত্যু ঘটাও মুসলিমরূপে।’

‘ফিরআওনী সম্প্রদায়ের প্রধানগণ বলল, তুমি মূসা ও তার সম্প্রদায়কে দেশে বিপর্যয় সৃষ্টি করার এবং তোমাকে ও তোমার দেবতাগণকে বর্জিত করে ফেলার সুযোগ দিচ্ছ? সে বলল, এবার আমি তাদের ছেলেদেরকে হত্যা করব এবং নারীদেরকে জীবিত রাখব। আমার তো তাদের উপর প্রবল!’-সূরা আ’রাফ  : ১২৩-১২৭

রক্ত ও আগুনের মাঝে ফিরআউনী শক্তির অট্টহাসি আমরা শুনেছি আসামে ও মিয়ানমারে। শুনে চলেছি ইরাকে ও ফিলিস্তিনে। এরই মাঝে আমরা আদায় করেছি ঈদের নামায।

আমরা তো দিবস-রজনী কুরআন মজীদ তিলাওয়াত করে চলেছি। আমরা কি উপলব্ধি করছি আল্লাহর বাণীর যথার্থতা-‘অনুমতি দেওয়া হল সেসব লোককে-যাদেরকে কাফিররা আক্রান্ত করছে। এজন্য যে, তারা অত্যাচারিত হয়েছে; এবং আল্লাহ তাদেরকে সাহায্য করতে সম্পূর্ণ সক্ষম। যাদেরকে তাদের ঘরবাড়ি থেকে অন্যায়ভাবে বের করে দেওয়া হয়েছে শুধু একারণে যে, তারা বলে, আমাদের প্রতিপালক আল্লাহ। এবং যদি প্রতিহত না করতেন আল্লাহ মানবজাতির একদলকে অপর দল দ্বারা, তাহলে ধ্বংস করে দেওয়া হত খৃস্টান ও সংসার বিরাগীদের উপাসনালয়, ইয়াহূদীদের ইবাদতের স্থান এবং মসজিদসমূহ, যেগুলোতে আল্লাহর নাম প্রচুর স্মরণ করা হয়। এবং নিশ্চয়ই আল্লাহ তাকে সাহায্য করবেন, যে তাঁকে সাহায্য করে; নিঃসন্দেহে আল্লাহ শক্তিমান, মহাপরাক্রান্ত।’-সূরা হাজ্জ : ৩৯-৪০

আসাম ও মিয়ানমারের সাম্প্রদায়িক দস্যুদের দাঁত ও নখের রক্ত, আমাদের ভাই-বোনের অগ্নিদগ্ধ শরীর দর্শনের পরও আমরা আমাদের মুসলিম ভাই-বোনের পাশে দাঁড়াতে পারিনি। এ ক্ষুদ্রতা নিয়েই আমরা উদযাপন করেছি ঈদুল ফিতর ।            

আল্লাহ কি ক্ষমা করবেন আমাদের এই দীনতা ও কাপুরুষতা? ইয়া আল্লাহ তুমি আমাদের ক্ষমা কর এবং আমাদের জড়দেহে প্রাণের সঞ্চায় কর। তুমিই তো ‘মৃত’ থেকে ‘জীবিত’ এবং ‘জীবিত’ থেকে ‘মৃত’ বের করে থাক।

 

দুআর আবেদন

গত ১৯ রমযানুল মুবারক ৩৩ হিজরী, মোতাবেক ৮ আগস্ট ’১২ ঈসায়ী আমাদের মধ্য থেকে বিদায় নিয়েছেন এ উপমহাদেশের প্রখ্যাত হাদীস বিশারদ,সহীহ বুখারীর সনামধন্য অনুবাদক শায়খুল হাদীস আল্লামা আজিজুল হক। আমরা তাঁর মাগফিরাত ও দরজা বুলন্দির জন্য দেশবাসীর কাছে দুআর আবেদন করছি।

তাঁর বর্ণাঢ্য জীবন ও কর্মের নানাদিক নিয়ে অতি শীঘ্র আমরা পাঠকবৃন্দের সামনে হাজির হব ইনশাআল্লাহ। আল্লাহ তাআলা হযরত রহ.কে জান্নাতুল ফিরদাউস নসীব করুন এবং তাঁর পরিবার-পরিজন ও ভক্ত-শাগরিদ সকলকে সবরে জামীলের তাওফীক দান করুন। আমীন। 

 

আরও পড়ুন:   ঈদ

সম্মানিত পাঠক!
মাসিক আলকাউসারের ওয়েব পেজটির উন্নয়ন কাজ চলছে। তাই বর্তমান সংখ্যাটি হালনাগাদ করতে বিলম্ব হচ্ছে। আপনাদের সাময়িক অসুবিধার জন্য আমরা আন্তরিকভাবে দুঃখিত।

হজ্ব এবং কুরবানী বিষয়ক প্রবন্ধসমূহ