সফর ১৪৩৯ . নভেম্বর ২০১৭

চলতি সংখ্যা . বর্ষ: ১৩ . সংখ্যা: ১০

ফজরের জামাত চলা অবস্থায় সুন্নত পড়া

 পাঁচ ওয়াক্ত নামাযের গুরুত্ব ও ফযীলত অসীম। এই নামাযের একটি বিধান হচ্ছে জামাতের সাথে আদায় করা। এটা ওয়াজিব। হাদীসে জামাতের প্রতি সবিশেষ উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে এবং তাতে অবহেলার ব্যাপারে কঠোর সতর্ক করা হয়েছে।

এক হাদীসে আছে, জামাতের নামায একাকী নামাযের চেয়ে সাতাশ গুণ বেশি মর্যাদা রাখে। -সহীহ বুখারী, হাদীস ৬৪৫; সহীহ মুসলিম, হাদীস ৬৫০

অন্য হাদীসে আছে, কোনো এক নামাযে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কিছু লোককে পেলেন না। বললেন, আমার ইচ্ছে হয়, কাউকে কাঠ-খড়ি আনতে বলি। তারপর আযান দিতে বলি। তারপর কাউকে নামায পড়াতে বলি। অতপর যারা জামাতে আসে না আমি তাদের কাছে যাই এবং কাঠ-খড়ি জ্বালিয়ে তাদেরসহ বাড়িঘর পুড়িয়ে দেই। -সহীহ বুখারী, হাদীস ৬৪৪; সহীহ মুসলিম, হাদীস ৬৫১

তার মধ্যে এশা ও ফজরের জামাতের গুরুত্ব সবচেয়ে বেশি। এ দুই সময়ে মানুষ সাধারণত পরিবারের সঙ্গে সময় কাটায় ও বিশ্রাম করে। ফলে জামাতদুটিতে যথেষ্ট অবহেলা ও গাফিলতি হয়ে থাকে। এজন্য হাদীসে এর প্রতি বিশেষভাবে উৎসাহিত ও অনুপ্রাণিত করা হয়েছে।

উবাই ইবনে কাব রা. থেকে বর্ণিত, একদা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদেরকে ফজরের নামায পড়ালেন। সালাম ফিরিয়ে জিজ্ঞেস করলেন, অমুক কি আছে? লোকেরা বলল, জী না। তারপর আরেকজনের নাম নিয়ে জিজ্ঞেস করলেন, অমুক কি আছে? লোকেরা বলল, জী না। তিনি বললেন, এ দুই নামায (এশা ও ফজর)  মুনাফিকদের জন্য সবচেয়ে কঠিন। তোমরা যদি জানতে যে, এই দুই নামাযে কী পরিমাণ সওয়াব নিহিত রয়েছে, তাহলে হামাগুড়ি দিয়ে হলেও তাতে আসতে। -সুনানে আবু দাউদ, হাদীস ৫৫৪; সহীহ ইবনে খুযায়মা, হাদীস ১৪৭৭

এমনিভাবে তাকবীরে উলা ও প্রথম কাতারেরও বেশ ফযীলত রয়েছে। এক হাদীসে আছে, জামাতের প্রথম কাতার (সম্মান ও মর্যাদায়) ফিরিশতাদের কাতারের অনুরূপ। তোমরা যদি জানতে যে, এটা কত মর্যাদাপূর্ণ তাহলে এর জন্য প্রতিযোগিতা করতে।  -প্রাগুক্ত

অন্য হাদীসে আছে, যে ব্যক্তি আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের উদ্দেশ্যে চল্লিশদিন তাকবীরে উলার সাথে জামাতে নামায আদায় করবে তার জন্য দুটি মুক্তিনামা লেখা হবে। জাহান্নাম থেকে মুক্তি এবং নিফাক থেকে মুক্তি। -জামে তিরমিযী, হাদীস ২৪১

সুতরাং নামাযের জন্য আগে থেকে প্রস্তুতি নেওয়া কর্তব্য। যাতে ধীরস্থিরতার সাথে সুন্নত পড়া যায় এবং তাকবীরে উলার সাথে প্রথম কাতারে জামাতে নামায আদায় করা যায়।

কিন্তু কখনো যদি এমন হয় যে, ইকামত শুরু হয়ে গেছে বা নামায শুরু হয়ে গেছে, তাহলে ফজরের সুন্নত ছাড়া অন্য সুন্নত হলে আর সুন্নতের নিয়ত বাঁধবে না; বরং জামাতে শরীক হয়ে যাওয়া জরুরি।

আর যদি ফজরের সুন্নত হয় এবং এ কথা মনে হয় যে, তা পড়ে জামাতের অন্তত এক রাকাত পাওয়া যাবে, তাহলে মসজিদের বাইরে তো তা নিঃসন্দেহে পড়া জায়েয; বরং পড়ে নেওয়াই উত্তম। এমনভিাবে মসজিদের ভেতরে জামাতের কাতার থেকে দূরে বারান্দায় বা মসজিদের এক কোণায় অথবা খুঁটির আড়ালে পড়াও জায়েয আছে। কিন্তু জামাতের কাতারে বা তার নিকটে পড়া মাকরূহে তাহরিমী।

সুন্নত নামাযের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে ফজরের দুই রাকাত সুন্নত। হাদীসে এর প্রভূত ফযীলত বর্ণিত হয়েছে এবং এর প্রতি বিশেষ তাগিদ দেওয়া হয়েছে। যা অন্যান্য সুন্নতের ক্ষেত্রে হয়নি। এখানে ফজরের সুন্নত সম্বন্ধে কয়েকটি হাদীস উল্লেখ করছি।

(ক) আয়েশা রা. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন-

ركعتا الفجر خير من الدنيا وما فيها .

ফজরের দুই রাকাত (সুন্নত) দুনিয়া ও দুনিয়ার মধ্যে যা কিছু আছে তার চেয়ে উত্তম। -সহীহ মুসলিম, হাদীস ৭২৫

(খ) তিনি আরো বর্ণনা করেছেন-

لم يكن النبي صلى الله عليه وسلم على شيء من النوافل أشد منه تعاهدا على ركعتي الفجر.

নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ফজরের দুই রাকাত (সুন্নত) নামাযে এত গুরুত্ব দিতেন যা অন্য কোনো নফল (বা সুন্নত) নামাযে দিতেন না। -সহীহ বুখারী, হাদীস ১১৬৩; সহীহ মুসলিম, হাদীস ৭২৪

(গ) তিনি আরো বর্ণনা করেছেন-

صلى النبي صلى الله عليه وسلم العشاء، ثم صلى ثماني ركعات، وركعتين جالسا، وركعتين بين النداءين، ولم يكن يدعهما أبدا.

নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এশার নামায পড়লেন। তারপর আট রাকাত নামায পড়লেন। তারপর বসে দুই রাকাত। তারপর আযান ও ইকামতের মধ্যে দুই রাকাত। এই দুই রাকাত তিনি কখনো বাদ দিতেন না। -সহীহ বুখারী, হাদীস ১১৫৯

(ঘ) আবু হুরায়রা রা. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন-

لا تدعوهما، وإن طردتكم الخيل.

 তোমরা এই দুই রাকাত কখনো ত্যাগ করো না, শত্রুবাহিনী তোমাদের তাড়া করলেও। -সুনানে আবু দাউদ, হাদীস ১২৫৮

(ঙ) আবদুল্লাহ ইবনে উমর রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলতে শুনেছি। (এরপর তিনি পাঁচটি বিষয় বর্ণনা করেছেন। তার মধ্যে একটি হচ্ছে)-

...وركعتا الفجر حافظوا عليهما، فإنهما من الفضائل.

তোমরা ফজরের দুই রাকাত (সুন্নত)-এর ব্যাপারে পুরোপুরি যতœবান হও। কারণ তা ফযীলতপূর্ণ বিষয়সমূহের অন্তর্ভুক্ত। -মুসনাদে আহমাদ, হাদীস ৫৫৪৪

উপরোক্ত হাদীসগুলো থেকে স্পষ্ট যে, ফজরের দুরাকাত সুন্নত অত্যন্ত ফযীলতপূর্ণ এবং পারতপক্ষে তা ত্যাগ না করা উচিত।

এ কারণে বহু সংখ্যক সাহাবী-তাবেয়ী এমন ছিলেন, যারা কখনো যদি মসজিদে এসে দেখতেন যে, ফজরের ইকামত বা জামাত শুরু হয়ে গেছে, তাহলে মসজিদের ভেতরে জামাতের কাতার থেকে দূরে বারান্দায় বা মসজিদের এক প্রান্তে কিংবা খুঁটির আড়ালে ফজরের দুরাকাত সুন্নত পড়ে নিতেন। তারপর জামাতে শরীক হতেন। আর কিছুসংখ্যক সাহাবী-তাবেয়ী মসজিদের ভেতরে তা পড়তেন না। তবে মসজিদের বাইরে ঘরে বা পথে অথবা মসজিদের দরজায় পড়তেন। তারপর ইমামের সাথে শরীক হতেন। এখানে তাঁদের কিছু আমল ও ফতোয়া উল্লেখ করা হল।

১. আবু মূসা আশআরী রা. থেকে বর্ণিত, (কূফার গভর্নর) সায়ীদ ইবনে আস তাঁকে এবং হুযায়ফা ও আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা.-কে ফজরের নামাযের আগে ডাকলেন। তাঁরা (কাজ শেষে) তার কাছ থেকে বিদায় নিলেন। ইতিমধ্যে মসজিদে ফজরের নামাযের ইকামত শুরু হয়ে গেছে। ইবনে মাসউদ রা. মসজিদের একটি খুঁটির আড়ালে ফজরের দুই রাকাত (সুন্নত) পড়লেন। তারপর জামাতে শরীক হলেন। -শরহু মাআনিল আসার ১/৬১৯

حدثنا سليمان بن شعيب، قال: ثنا عبد الرحمن بن زياد، قال: ثنا زهير بن معاوية، عن أبي إسحاق، قال: حدثني عبد الله بن أبي موسى، عن أبيه، حين دعاهم سعيد بن العاص، دعا أبا موسى، وحذيفة، وعبد الله بن مسعود رضي الله عنهم، قبل أن يصلي الغداة، ثم خرجوا من عنده وقد أقيمت الصلاة، فجلس عبد الله إلى أسطوانة من المسجد، فصلى الركعتين، ثم دخل في الصلاة.

এ ঘটনাটি আবু ইসহাক সাবেয়ী থেকে কিছু ভিন্নতার সাথে মুতাররিফ ইবনে তরীফ ও সুফিয়ান সাওরী রাহ.ও বর্ণনা করেছেন। মুতাররিফের বর্ণনায় এ কথাও আছে যে, আবু মূসা আশয়ারী রা. জামাতে শরীক হয়ে গেলেন। -দ্রষ্টব্য : মুসান্নাফে আবদুর রাযযাক, বর্ণনা ৪০২১; মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা, বর্ণনা ৬৪৭৬

বদরুদ্দীন আইনী রাহ. (৮৫৫হি.) বলেন, فأخرجه من ثلاث طرق صحاح  ইমাম তহাবী রাহ. এটি তিনটি সহীহ সনদে বর্ণনা করেছেন। -নুখাবুল আফকার ৩/৬৮২

২. আবু মিজলায থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি ফজরের জামাত চলা অবস্থায় ইবনে আব্বাস ও ইবনে উমর রা.-এর সঙ্গে মসজিদে প্রবেশ করলাম। ইবনে উমর রা. জামাতের কাতারে প্রবেশ করলেন। আর ইবনে আব্বাস রা. ফজরের দুই রাকাত (সুন্নত) পড়লেন। তারপর জামাতে শরীক হলেন। -প্রাগুক্ত

حدثنا أحمد بن عبد المؤمن الخراساني، قال: ثنا علي بن الحسن بن شقيق، قال: أنا الحسين بن واقد، قال: ثنا يزيد النحوي، عن أبي مجلز، قال: دخلت المسجد في صلاة الغداة مع ابن عمر وابن عباس رضي الله عنهم، والإمام يصلي، فأما ابن عمر رضي الله عنهما فدخل في الصف، وأما ابن عباس رضي الله عنهما، فصلى ركعتين، ثم دخل مع الإمام.

বদরুদ্দীন আইনী রাহ. বলেন, فأخرجه من طريقين صحيحين  ইমাম তহাবী রহ. এটি দুটি সহীহ সনদে বর্ণনা করেছেন। -নুখাবুল আফকার ৩/৬৮৩

৩. যায়েদ ইবনে আসলাম থেকে বর্ণিত, ইবনে উমর রা. মসজিদে এসে দেখেন, ফজরের জামাত চলছে। কিন্তু তাঁর ফজরের দুই রাকাত (সুন্নত) পড়া হয়নি। তিনি হাফসা রা.-এর কামরায় তা পড়লেন। তারপর জামাতে শরীক হলেন। -প্রাগুক্ত  ১/৬২০-৬২১

حدثنا علي بن شيبة، قال: ثنا الحسن بن موسى، قال: ثنا شيبان بن عبد الرحمن، عن يحيى بن أبي كثير، عن زيد بن أسلم، عن ابن عمر رضي الله عنهما أنه جاء والإمام يصلي الصبح، ولم يكن صلى الركعتين قبل صلاة الصبح، فصلاهما في حجرة حفصة رضي الله عنها، ثم إنه صلى مع الإمام.

বদরুদ্দীন আইনী রাহ. বলেন, فأخرجه من ثلاث طرق صحاح  ইমাম তহাবী রাহ. এটি তিনটি সহীহ সনদে বর্ণনা করেছেন।-নুখাবুল আফকার ৩/৬৮৪

৪. আবু উবায়দুল্লাহ থেকে বর্ণিত, আবু দারদা রা. কখনো মসজিদে এসে দেখতেন, ফজরের জামাত চলছে। তিনি মসজিদের এক কোণায় (ফজরের) দুই রাকাত (সুন্নত) পড়ে নিতেন। তারপর জামাতে শরীক হতেন। -শরহু মাআনিল আসার ১/৬২১

حدثنا أبو بشر الرقي، قال: ثنا أبو معاوية، عن مسعر، عن عبيد بن الحسن، عن أبي عبيد الله، عن أبي الدرداء أنه كان يدخل المسجد والناس صفوف في صلاة الفجر، فيصلي الركعتين في ناحية المسجد، ثم يدخل مع القوم في الصلاة.

বদরুদ্দীন আইনী রাহ. বলেন, فأخرجه بإسناد صحيح  ইমাম তহাবী রাহ. এটি সহীহ সনদে বর্ণনা করেছেন। -নুখাবুল আফকার ৩/৬৮৪

৫. আবু উসমান নাহদী থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমরা কখনো মসজিদে এসে দেখতাম, উমর রা. (ফজরের) নামায শুরু করে দিয়েছেন। কিন্তু আমাদের ফজরের দুই রাকাত (সুন্নত) পড়া হয়নি। আমরা মসজিদের শেষ প্রান্তে তা পড়ে নিতাম। তারপর জামাতে শরীক হতাম। -প্রাগুক্ত

حدثنا أبو بكرة، قال: ثنا أبو داود، قال: ثنا هشام بن أبي عبد الله، عن جعفر، عن أبي عثمان النهدي، قال: كنا نأتي عمر بن الخطاب رضي الله عنهما قبل أن نصلي الركعتين قبل الصبح، وهو في الصلاة، فنصلي الركعتين في آخر المسجد، ثم ندخل مع القوم في صلاتهم.

এটি আবু উসমান নাহদী থেকে কিছু ভিন্নতার সাথে উসমান ইবনে গিয়াস ও আসেম ইবনে সুলায়মান আলআহওয়ালও বর্ণনা করেছেন। -দ্রষ্টব্য : মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা, বর্ণনা ৬৪৭৫; শরহু মাআনিল আসার ১/৬২১

এ বর্ণনাটি থেকে বোঝা যায় যে, উমর রা.-এর যামানায় তা বেশ প্রচলিত ছিল এবং এ ব্যাপারে তিনি অবগত ছিলেন।

ইউসুফ বিন্নুরী রাহ. (১৩৯৭ হি.) বর্ণনাটি উদ্ধৃত করে লিখেছেন,

وهذا يدل على تعامل عام بينهم ، وأنه على علم من عمر في عهده وعدم إنكاره، وهذا يكون أقوى ما يتمسك به.

এ থেকে বোঝা যায় যে, এটা তাদের মাঝে ব্যাপকভাবে অনুসৃত ছিল এবং উমর রা. তা জানতেন; কিন্তু এর উপর আপত্তি করতেন না। এটা আলোচ্য বিষয়ে শক্তিশালী দলীল। -মাআরিফুস সুনান ৪/৭৬

আরো দ্রষ্টব্য : ইলাউস সুনান ৭/১০৪

৬. ইমাম শাবী থেকে বর্ণিত, একদা মাসরূক রাহ. ফজরের জামাত চলাকালে মসজিদে প্রবেশ করলেন। কিন্তু তাঁর ফজরের দুই রাকাত (সুন্নত) পড়া হয়নি। তিনি মসজিদের এক কোণায় তা পড়ে নিলেন। তারপর জামাতে শরীক হলেন। -মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা, বর্ণনা ৬৪৭২

حدثنا هشيم، قال: أخبرنا حصين، وابن عون، عن الشعبي، عن مسروق؛ أنه دخل المسجد والقوم في صلاة الغداة، ولم يكن صلى الركعتين، فصلاهما في ناحية، ثم دخل مع القوم في صلاتهم.

এটি ইমাম শাবী থেকে আসেম ইবনে সুলায়মান আলআহওয়ালও এবং হুসাইন ইবনে আবদুর রহমান থেকে ইমাম শুবা রাহ.ও বর্ণনা করেছেন। -দ্রষ্টব্য : শরহু মাআনিল আসার ১/৬২১-৬২২

বদরুদ্দীন আইনী রাহ. বলেন, فأخرجه من ثلاث طرق صحاح  ইমাম তহাবী রাহ. এটি তিনটি সহীহ সনদে বর্ণনা করেছেন। -নুখাবুল আফকার ৩/৬৮৫

৭. কাসেম ইবনে আবী আইয়ুব থেকে বর্ণিত, সায়ীদ ইবনে জুবাইর রাহ. ফজরের জামাত চলা অবস্থায় মসজিদের দিকে এলেন। মসজিদে প্রবেশের আগে মসজিদের দরজায় (ফজরের) দুই রাকাত (সুন্নত) পড়ে নিলেন। -প্রাগুক্ত, বর্ণনা ৬৪৭৪

حدثنا عباد بن عوام، عن حصين، عن القاسم بن أبي أيوب، عن سعيد بن جبير؛ أنه جاء إلى المسجد والإمام في صلاة الفجر، فصلى الركعتين قبل أن يلج المسجد، عند باب المسجد.

৮. ইউনুস ইবনে উবায়েদ থেকে বর্ণিত, হাসান বসরী রাহ. বলতেন, তা মসজিদের এক কোণায় পড়ে নিবে। তারপর জামাতে শরীক হবে। -প্রাগুক্ত, বর্ণনা ৬৪৭৩

حدثنا هشيم، عن يونس، عن الحسن، قال: كان يقول: يصليهما في ناحية، ثم دخل مع القوم في صلاتهم.

হাসান বসরী রাহ. থেকে অনুরূপ ফতোয়া ইয়াযিদ ইবনে ইবরাহীমও বর্ণনা করেছেন। -দেখুন : শরহু মাআনিল আসার ১/৬২২

বদরুদ্দীন আইনী রাহ. বলেন, فأخرجه من طريقين رجالهما ثقات  ইমাম তহাবী রহ. এটি দুই সূত্রে বর্ণনা করেছেন, উভয় সূত্রের রাবীগণ ছিকা। -নুখাবুল আফকার ৩/৬৮৬

৯. উসমান ইবনে আসওয়াদ থেকে বর্ণিত, মুজাহিদ রাহ. বলেন, যদি কখনো মসজিদে গিয়ে দেখ যে, ফজরের জামাত শুরু হয়ে গেছে কিন্তু তোমার সুন্নত পড়া হয়নি, তাহলে তা পড়ে নিবে- জামাতের এক রাকাত ছুটে যাবে বলে মনে হলেও। -প্রাগুক্ত, বর্ণনা ৬৪৭৯

حدثنا عبيد الله بن موسى، عن عثمان بن الأسود، عن مجاهد، قال: إذا دخلت المسجد والناس في صلاة الصبح، ولم تركع ركعتي الفجر فاركعهما، وإن ظننت أن الركعة الأولى تفوتك.

১০. উবায়েদ ইবনে হাসান থেকে বর্ণিত, আমি (আবদুর রহমান) ইবনে মাকিল রাহ.-কে দেখেছি, তিনি (মসজিদের) দরজায় ফজরের দুই রাকাত (সুন্নত) পড়েছেন। -প্রাগুক্ত, বর্ণনা ৬৪৮৭

حدثنا وكيع، عن مسعر، عن عبيد بن الحسن، قال: رأيت ابن معقل صلى الركعتين قبل الفجر في السدة.

এছাড়া ইকরিমা ও ইবরাহীম নাখায়ী রাহ. থেকেও মসজিদের ভেতরে ফজরের সুন্নত পড়ার কথা প্রমাণিত। ইমাম ইবনে বাত্তাল রাহ. (৪৪৯হি.) তাঁর সহীহ বুখারীর ব্যাখ্যাগ্রন্থে (২/২৮৬) উমর রা.-এর আমলও অনুরূপ ছিল বলে উল্লেখ করেছেন। আর মসজিদের বাইরে পড়া আরো প্রমাণিত আতা ইবনে আবী রাবাহ ও হাম্মাদ ইবনে আবী সুলায়মান রাহ. থেকে।

উপরোক্ত আসারসমূহ থেকে একটি বিষয় দিবালোকের ন্যায় পরিষ্কার। তা হল, ফজরের সুন্নত অন্যান্য সুন্নতের চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। পারতপক্ষে তা ত্যাগ না করা কর্তব্য। এটা মূলত নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর ব্যাপারে যে তাগিদ দিয়েছেন সেটারই বহিঃপ্রকাশ ও বাস্তব নমুনা।

এখানে পাঠক লক্ষ করেছেন যে, বহুসংখ্যক সাহাবী-তাবেয়ী ইকামত বা জামাত চলা অবস্থায় মসজিদে এলে মসজিদের ভেতরে জামাতের কাতার থেকে দূরে বারান্দায় বা মসজিদের এক কোণায় অথবা খুঁটির আড়ালে ফজরের দুই রাকাত সুন্নত পড়ে নিতেন। তারপর জামাতে শরীক হতেন। আর কতিপয় সাহাবী-তাবেয়ী মসজিদের ভেতরে না পড়লেও বাইরে পড়তেন। তারপর ইমামের সাথে শরীক হতেন।

সুতরাং ফজরের জামাত চলাকালে মসজিদের ভেতরে জামাতের কাতার থেকে দূরে বারান্দায় বা মসজিদের এক কোণায় কিংবা খুঁটির আড়ালে ফজরের সুন্নত পড়াকে নাজায়েয বা হারাম কিংবা বিদআত আখ্যা দেওয়া সম্পূর্ণ অনুচিত। একে বিদআত আখ্যা দেওয়া বস্তুত ঐ সকল সাহাবী-তাবেয়ীর আমলকেও বিদআত আখ্যা দেওয়া।

কতিপয় সাহাবী-তাবেয়ী إذا أقيمت الصلاة فلا صلاة إلا المكتوبة (নামাযের ইকামত শুরু হয়ে গেলে ফরয ছাড়া অন্য নামায পড়া জায়েয নয়)-এই হাদীসের উপর ভিত্তি করে ইকামত বা জামাত চলা অবস্থায় ফজরের সুন্নত পড়তেন না। তাঁদের মধ্যে রয়েছেন আবু হুরায়রা রা., আবু মূসা আশয়ারী রা., মুহাম্মদ ইবনে সীরীন, ইয়াহইয়া ইবনে আবী কাসীর রাহ.।

কিন্তু তাঁরা কখনো ঐ সকল সাহাবী-তাবেয়ীর উপর আপত্তি করেননি, যারা সুন্নত পড়ে নেওয়াকেই ভালো মনে করতেন। পেছনে আমরা দেখেছি যে, আবু মূসা আশয়ারী ও হুযায়ফা রা.-এর সামনে ইবনে মাসউদ রা. তা পড়েছেন এবং ইবনে উমর রা.-এর সামনে ইবনে আব্বাস রা. পড়েছেন। কিন্তু কেউ কারো উপর আপত্তি করেননি। যদি তা নাজায়েয হত তাহলে তাঁরা অবশ্যই বাধা দিতেন। সাহাবায়ে কেরাম নাজায়েয কাজে কখনো চুপ থাকতেন না।

ইমাম তহাবী রাহ. যথার্থই লিখেছেন,

منهم عبد الله بن مسعود، وبمحضر من حذيفة، ومن أبي موسى لذلك، ولم ينكراه عليه، فدل ذلك على متابعتهما إياه عليه.

অর্থাৎ, আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. হুযায়ফা ও আবু মূসা আশয়ারী রা.-এর উপস্থিতিতে তা পড়েছেন। কিন্তু তাঁরা কোনোরূপ আপত্তি করেননি। এ থেকে বোঝা যায় যে, উভয়ে এটা সমর্থন করেছেন। -শরহু মুশকিলিল আসার ১০/৩৯৬

যে সকল সাহাবী-তাবেয়ী জামাত চলাকালে ফজরের সুন্নত পড়তেন না তাঁরা إذا أقيمت الصلاة فلا صلاة إلا المكتوبة-এই হাদীসের বিধানকে সকল নামায এমনকি ফজরের সুন্নতের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য মনে করতেন। কিন্তু অন্যান্য সাহাবী-তাবেয়ী ফজরের সুন্নত অধিক গুরুত্ব ও মর্যাদাপূর্ণ হওয়ায় এই বিধান থেকে একে ভিন্ন মনে করতেন। হাদীসটিকে তাঁরা ফজরের সুন্নত ছাড়া অন্যান্য নামাযের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য মনে করতেন। ফজরের সুন্নতের ব্যাপারে নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের তাগিদ এবং আলোচ্য বিষয় সংক্রান্ত বিভিন্ন বর্ণনার পর্যালোচনা থেকেও এটাই প্রতীয়মান হয়। কোনো কোনো সাহাবী নবীজীর সামনে ফজরের ইকামত চলাকালে মসজিদে সুন্নত পড়েছেন। এ ক্ষেত্রে নবীজী তাঁদেরকে সরাসরি নিষেধ করেননি বা এ কথা বলেননি যে, إذا أقيمت الصلاة فلا صلاة إلا المكتوبة (ফরযের ইকামত শুরু হলে অন্য নামায পড়া নিষেধ)। বরং তিনি বিভিন্ন কারণ উল্লেখ করেছেন। যদি ইকামত চলা অবস্থায় ফজরের সুন্নত পড়া সর্বাবস্থায় নাজায়েয হত, তাহলে তিনি স্পষ্ট নিষেধ করতেন বা বলতেন যে, ফরযের ইকামত শুরু হলে অন্য নামায পড়া নিষেধ। এখানে সংক্ষেপে এধরনের কয়েকটি বর্ণনার পর্যালোচনা করা হল।

বর্ণনা নং ১ :

عن عبد الله بن مالك ابن بحينة، أن رسول الله صلى الله عليه وسلم مر برجل يصلي، وقد أقيمت صلاة الصبح، فكلمه بشيء، لا ندري ما هو، فلما انصرفنا أحطنا نقول: ماذا قال لك رسول الله صلى الله عليه وسلم؟ قال: قال لي: يوشك أن يصلي أحدكم الصبح أربعا.

আবদুল্লাহ ইবনে মালেক ইবনে বুহায়না রা. থেকে বর্ণিত, ফজরের ইকামত চলাকালে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নামাযরত একলোকের পাশ দিয়ে গেলেন এবং তাকে কিছু বললেন কিন্তু আমরা তা বুঝিনি। নামায শেষে আমরা তাকে ঘিরে জিজ্ঞেস করলাম, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তোমাকে কী বলেছেন? বলল, বলেছেন, তোমাদের কেউ হয়তো ফজরের নামায চার রাকাত পড়বে? -সহীহ মুসলিম, হাদীস ৭১১

এ হাদীস থেকে বোঝা যায় যে, ফজরের ইকামত চলা অবস্থায় অন্য নামায নিষেধের কারণ হচ্ছে, এতে কারো এ কথা মনে হতে পারে যে, ফজরের ফরয নামায চার রাকাত। -দ্রষ্টব্য : ফাতহুল মুলহিম বিশরহি সহীহিল ইমাম মুসলিম ৪/৯৩

স্পষ্ট যে, এ ধারণা জন্মাতে পারে যদি জামাতের কাতারে বা তার নিকটে সুন্নত পড়া হয়। মসজিদের বাইরে পড়লে তো এ সম্ভাবনা মোটেই নেই। এমনিভাবে মসজিদের ভেতরে জামাতের কাতার থেকে দূরে বারান্দায় বা কোণায় পড়লেও তা হবে না।

উপরোক্ত হাদীসের বর্ণনাশৈলী থেকে মনে হয় যে, ঐ সাহাবী জামাতের কাতারে বা তার নিকটে সুন্নত পড়ছিলেন। হাদীসটির পাঠ আবার দেখুন,

أن رسول الله صلى الله عليه وسلم مر برجل يصلي، فكلمه بشيء...

(রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নামাযরত একলোকের পাশ দিয়ে গেলেন এবং তাকে কিছু বললেন)।

এটা ফজরের নামাযে মসজিদে প্রবেশকালের ঘটনা। নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সাধারণত মসজিদে নববীর পূর্ব দিকের দরজা দিয়ে প্রবেশ করতেন, যা মসজিদের মাঝামাঝি বা কিছুটা কিবলার দিকে এগিয়ে অবস্থিত। হাদীসটির উপরোক্ত পাঠ এবং নবীজীর প্রবেশের অবস্থা থেকে মনে হয় হয়, সাহাবী জামাতের কাতারে বা তার নিকটে নামায পড়ছিলেন।

এ বিষয়টি আরো স্পষ্ট হয় ইবনে আব্বাস রা.-এর বর্ণনা থেকে। একদা তিনি মসজিদে এসে দেখেন, ফজরের ইকামত শুরু হয়ে গেছে। কিন্তু তাঁর সুন্নত পড়া হয়নি। তিনি সুন্নতের নিয়ত বাঁধলেন। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তা দেখে নিষেধ করলেন এবং তাঁর হাত টেনে ধরে বললেন, তুমি কি ফজরের (ফরয) নামায চার রাকাত পড়তে চাও?

বর্ণনাটির কিছু পাঠ দেখুন-

أقيمت الصلاة ولم أصل الركعتين، فرآني وأنا أصليهما، فنهاني فجذبني وقال: تريد أن تصلي للصبح أربعا؟

-فأخذ بيدي النبي صلى الله عليه و سلم و قال: أتصلي الصبح أربعا؟

-সহীহ ইবনে খুযায়মা, হাদীস ১১২৪; সহীহ ইবনে হিব্বান, হাদীস ২৪৬৯

এ থেকে স্পষ্ট বোঝা যায় যে, ইবনে আব্বাস রা. জামাতের কাতারে বা তার নিকটে সুন্নত পড়ছিলেন। যে কারণে নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁর হাত টেনে ধরতে পেরেছেন।

বর্ণনা নং ২ :

عن أبي سلمة بن عبد الرحمن أنه قال: سمع قوم الإقامة فقاموا يصلون، فخرج عليهم رسول الله صلى الله عليه و سلم فقال: أصلاتان معا؟ أصلاتان معا؟ وذلك في صلاة الصبح في الركعتين اللتين قبل الصبح.

আবু সালামা ইবনে আবদুর রহমান থেকে বর্ণিত, কিছু সাহাবী ইকামত  শুনে (ফজরের সুন্নত) নামায পড়তে দাঁড়ালেন। এমন সময় রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁদের মধ্যে আগমন করলেন। বললেন, দুই নামায এক সাথে? দুই নামায এক সাথে? -মুয়াত্তা মালেক ১/৯৮

এ হাদীস থেকে ইকামতের পর অন্য নামায নিষেধের দ্বিতীয় আরেকটি কারণ বের হয়। তা হল, এতে একই জায়গায় ফরয ও সুন্নত নামাযের মিশ্রণ হয়ে যায়।

বলার অপেক্ষা রাখে না যে, এই মিশ্রিতকরণ হবে যদি জামাতের কাতারে বা নিকটে সুন্নত পড়া হয়। মসজিদের বাইরে পড়লে তো এ সম্ভাবনা বিলকুল নেই। একইভাবে মসজিদের ভেতরে জামাতের কাতার থেকে দূরে মসজিদের কোণায় বা বারান্দায় পড়লেও তা হবে না।

ইমাম ইবনে রুশদ রাহ. (৫৯৫হি.) আলোচিত বিষয়ে ইমামদের মতভেদের কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে লিখেছেন,

والسبب في اختلافهم اختلافهم في مفهوم قوله عليه الصلاة والسلام: إذا أقيمت الصلاة فلا صلاة إلا المكتوبة...

ومن قصر ذلك على المسجد فالعلة عنده إنما هو أن تكون صلاتان معا في موضع واحد لمكان الاختلاف على الإمام، كما روي عن أبي سلمة بن عبد الرحمن أنه قال سمع قوم...

অর্থাৎ, তাঁদের এই মতভেতের কারণ হল إذا أقيمت الصلاة فلا صلاة إلا المكتوبة -এই হাদীসের ব্যাখ্যায় তাঁদের মধ্যে মতভেদ হয়েছে। কারো মতে এ বিধানটি মসজিদের সাথে বিশেষ। তাঁদের মতে ইকামত চলাকালে অন্য নামায নিষেধের কারণ হল একই জায়গায় দুই নামায একসাথে হওয়া। এতে ইমামের সাথে বিরোধ দেখা যায়।

এরপর তিনি উপরোক্ত বর্ণনাটি উল্লেখ করেছেন। -বিদায়াতুল মুজতাহিদ ১/২৫৮

যাকারিয়া কান্ধলবী রাহ. (১৪০২হি.) ইমাম ইবনে রুশদের উপরোক্ত বক্তব্য উল্লেখ করে বলেন, وهذه العلة أولى এ কারণটিই অধিক সঙ্গতিপূর্ণ। -আওজাযুল মাসালিক ২/৩৮১  

বর্ণনা নং ৩ :

عن عبد الله بن سرجس، قال: دخل رجل المسجد ورسول الله صلى الله عليه وسلم في صلاة الغداة، فصلى ركعتين في جانب المسجد، ثم دخل مع رسول الله صلى الله عليه وسلم، فلما سلم رسول الله صلى الله عليه وسلم، قال: يا فلان بأي الصلاتين اعتددت؟ أبصلاتك وحدك، أم بصلاتك معنا؟

আবদুল্লাহ ইবনে সারজিস রা. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ফজরের নামায পড়াচ্ছিলেন। এমন সময় একলোক মসজিদে প্রবেশ করে এক কোণায় (ফজরের) দুই রাকাত (সুন্নত) পড়ল। তারপর জামাতে শরীক হল। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সালাম ফিরিয়ে তাকে জিজ্ঞেস করলেন, তুমি কোন্ নামাযকে ফরয গণ্য করেছ? একাকী যা পড়েছ তা, না আমাদের সাথে যা আদায় করেছ তা? -সহীহ মুসলিম, হাদীস ৭১২

এই হাদীস থেকে তৃতীয় আরেকটি কারণ জানা যায়। তা হল, ইকামতের পর সুন্নত পড়লে ইমামের সাথে বিরোধ দেখা যায়।

বলাবাহুল্য, মসজিদের বাইরে সুন্নত পড়লে এ সম্ভাবনা একেবারেই নেই। আর ভেতরে জামাতের কাতারে বা নিকটে পড়লে পুরোপুরি থাকে। আর জামাতের কাতার থেকে দূরে পড়লে আংশিক থাকে।

এ পর্যালোচনা থেকে বোঝা গেল যে, ফজরের ইকামত বা জামাত চলাকালে অন্য নামায নিষেধের কারণ হল তিনটি :

১. ফজরের ফরযকে চার রাকাত মনে করার আশংকা।

২. একই জায়গায় ফরজ ও সুন্নতের মিশ্রিতকরণ।

৩. ইমামের সাথে বিরোধ।

এবং এ-ও জানা গেল যে, মসজিদের বাইরে সুন্নত পড়লে এ তিনটি কারণের কোনোটিই পাওয়া যায় না। তাই মসজিদের বাইরে ফজরের সুন্নত পড়তে কোনো অসুবিধা নেই। বরং পড়ে নেওয়াই উচিত। আর জামাতের কাতারের মধ্যে বা কাতারের নিকটে পড়লে সবগুলো কারণ পাওয়া যায়। এজন্য তা মাকরূহে তাহরিমী। আর কাতার থেকে দূরে বারান্দায় বা কোণায় পড়লে প্রথম দুটি কারণ থাকে না, তবে শেষটি আংশিক থাকে। এজন্য বাইরে জাগা থাকা অবস্থায় এমন করবে না। অবশ্য প্রয়োজনে কোনো কোনো ফকীহ এর অবকাশ এজন্য দিয়েছেন যে, অনেক বড় বড় সাহাবী-তাবেয়ী তা করেছেন। যেমন আমরা উদ্ধৃতিসহ তা পড়ে এসেছি।

যাকারিয়া কান্ধলবী রাহ. বলেন,

ولا يذهب عليك أن جملة الروايات الواردة في الباب يوافق العلة التي استنبطها الحنفية والمالكية من الاختلاف على الإمام واختلاط الصلاتين...

এটা ভুলে গেলে হবে না যে, আলোচ্য বিষয়ের সবগুলো বর্ণনা হানাফী ও মালেকী ফকীহগণের আহরণকৃত ইল্লত বা কারণের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ। তা হল, ইমামের সাথে বিরোধ এবং এক জায়গায় দুই নামাযের মিশ্রিতকরণ।

এরপর তিনি উপরোক্ত কয়েকটি হাদীস উল্লেখ করেছেন। -দ্রষ্টব্য : আওজাযুল মাসালিক ২/৩৮১

ইউসুফ বিন্নুরী রাহ. আলোচিত বিষয়ে সারগর্ভ আলোচনার পর লিখেছেন,

وبه يجمع بين كل حديث مرفوع في الباب، وكل أثر صحيح في الموضوع، وهي الطريقة المثلى، ولو اكتفينا بذلك المرفوع فقط، أو قلنا: العبرة لما روى لا لما رآى، لزمنا أن نتغامض عن مادة غزيرة في الباب مرفوعة وموقوفة، فلو قلنا: إن الراوي أدرى بما يرويه لكان حجة لنا، حيث صح عن ابن عمر وابن عباس المرفوع، وعلى خلافه في الظاهر صح عملهما، وكذا لو قلنا: عمل الراوي بخلاف روايته دليل النسخ أو التخصيص والتقييد لكان حجة أيضا.

وبالجملة مذهب جمهور الفقهاء ..أقوى أثرا، كما هو أقوى نظرا، ولو قلنا: إنه مذهب جمهرة الصحابة والتابعين لما كان  فيه شطط، وحيث لم يثبت عن الصحابة خلافه إلا قليلا، وتعامل الصحابة أقوى حجة عند معترك الخصام، وهو يجعل المرفوع مقيدا...

এ পদ্ধতিতে আলোচ্য বিষয়ের মারফূ ও মওকূফ সবগুলো বর্ণনার মধ্যে সমন্বয় হয়ে যায়। আর (বিরোধপূর্ণ বর্ণনাসমূহের মধ্যে সমাধানের জন্য) এটাই উত্তম পন্থা। অন্যথায় আমরা যদি শুধু ঐ মারফূ হাদীস (إذا أقيمت الصلاة فلا صلاة إلا المكتوبة)-এর মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকি কিংবা বলি যে, সাহাবী (নবীজী থেকে) যা বর্ণনা করেছেন তা-ই ধর্তব্য, তাঁর মত ধর্তব্য নয়, তাহলে আলোচিত প্রসঙ্গে মারফূ-মওকূফ অনেক বিষয়কে আমাদের উপেক্ষা করতে হবে। আর যদি বলি যে, রাবী তার বর্ণনা সম্পর্কে সর্বাধিক জ্ঞাত, তাহলে এটাও আমাদের পক্ষে। কারণ ইবনে উমর ও ইবনে আব্বাস রা. জামাত চলাকালে অন্য নামায নিষেধ বিষয়ে হাদীস বর্ণনা করেছেন কিন্তু উভয়ের আমল (বাহ্যিক দৃষ্টিতে) এর বিপরীত। এমনিভাবে যদি বলি যে, রাবীর নিজ বর্ণনার বিপরীতে আমল করা বর্ণনাটির বিধান রহিত বা বিশেষ হওয়ার আলামত, তাহলে এটাও আমাদের পক্ষে।

সারকথা, জুমহুরে ফুকাহার মাসলাক বর্ণনাগত দলীলের দিক থেকে অধিক শক্তিশালী এবং যুক্তিগত দলীলের দিক থেকেও অধিক শক্তিশালী। এ কথা বললে অত্যুক্তি হবে না যে, এটাই জুমহুরে সাহাবা-তাবেয়ীর মাসলাক। সাহাবায়ে কেরাম থেকে এর বিপরীত বক্তব্য অল্পই প্রমাণিত। মতভেদের ক্ষেত্রে সাহাবায়ে কেরামের তাআমুল অতি শক্তিশালী দলীল। এতে মারফূ হাদীসটির বিধান বিশেষ হয়ে যায় (ব্যাপক থাকে না)। -মাআরিফুস সুনান ৪/৮৮

মোদ্দাকথা, ফজরের জামাত চলাকালে মসজিদের বাইরে তো বটেই ভেতরেও জামাতের কাতার থেকে দূরে বারান্দায় বা মসজিদের এক কোণায় ফজরের সুন্নত পড়া জায়েয। আর إذا أقيمت الصلاة فلا صلاة إلا المكتوبة -এ হাদীসটি ফজরের সুন্নত ছাড়া অন্যান্য নামাযের জন্য। ফজরের সুন্নত অধিক গুরুত্বপূর্ণ হওয়ায় অনেক বড় বড় সাহাবী-তাবেয়ী এই বিধানকে এ থেকে ব্যতিক্রম মনে করেছেন।

এখানে ইবনে আব্বাস রা.-এর আমলটি বিশেষভাবে লক্ষণীয়। তিনি জামাত চলা অবস্থায় জামাতের কাতার থেকে দূরে ফজরের সুন্নত পড়তেন। অথচ একদা রাসূলুল্লাহ আলাইহি ওয়াসাল্লাম মসজিদের ভেতরে সুন্নত পড়তে দেখে তাঁকে নিষেধ করেছিলেন। এর অর্থ এটাই যে, ওই নিষেধ ছিল জামাতের কাতারে বা তার নিকটে পড়ার জন্য। দূরে পড়লে নিষেধ নেই।

এ কারণে যদি অন্তত এক রাকাত জামাতের সাথে পাওয়া যাবে বলে মনে হয় তাহলে (উপরোক্ত পদ্ধতিতে) তা পড়া জায়েয। এতে জামাতের ফযীলতও অর্জিত হয়ে যাবে এবং ফজরের সুন্নতের সওয়াবও হাসিল হয়ে যাবে। কিন্তু যদি এক রাকাতও পাওয়ার সম্ভাবনা না থাকে, তাহলে জামাতে শরীক হয়ে যাবে। ফজরের সুন্নত মর্যাদাপূর্ণ হলেও জামাতের মর্যাদা ও গুরুত্ব তার চেয়ে বেশি এবং জামাত পরিত্যাগের ব্যাপারে কঠোর সতর্ক বাণী এসেছে।

 হেদায়া গ্রন্থকার ইমাম মারগিনানী (৫৯৩হি.) রাহ. বলেন,

(ومن انتهى إلى الإمام في صلاة الفجر وهو لم يصل ركعتي الفجر، إن خشي أن تفوته ركعة ويدرك الأخرى، يصلي ركعتي الفجر عند باب المسجد، ثم يدخل)، لأنه أمكنه الجمع بين الفضيلتين، (وإن خشي فوتهما دخل مع الإمام)، لأن ثواب الجماعة أعظم والوعيد بالترك ألزم، ...والتقييد بالأداء عند باب المسجد يدل على الكراهة في المسجد إذا كان الإمام في الصلاة، والأفضل في عامة السنن والنوافل المنزل، هو المروي عن النبي عليه الصلاة والسلام.

অর্থাৎ, যে মসজিদে গিয়ে দেখে, ফজরের জামাত শুরু হয়ে গেছে কিন্তু তার সুন্নত পড়া হয়নি, যদি তার মনে হয় যে, সুন্নত পড়লে জামাতের এক রাকাত ছুটে গেলেও আরেক রাকাত পাওয়া যাবে, তাহলে মসজিদের দরজায় সুন্নত পড়ে নিবে। তারপর জামাতে শরীক হবে। কারণ এখানে উভয় ফযীলতের (ফজরের সুন্নতের ফযীলত ও জামাতের ফযীলত) মধ্যে সমন্বয় করা সম্ভব হচ্ছে। আর যদি মনে হয় যে, উভয় রাকাত ছুটে যাবে তাহলে জামাতে শরীক হয়ে যাবে। কারণ জামাতের মর্যাদা বেশি এবং তা পরিত্যাগ করার ব্যাপারে সতর্কবাণী এসেছে।

(জামিউস সাগীর গ্রন্থে) তা মসজিদের দরজায় আদায়ের শর্তকরণ থেকে বোঝা যায় যে, জামাত চলা অবস্থায় তা মসজিদে ভেতরে পড়া মাকরূহ (অনুত্তম)।  সুন্নত-নফলের ক্ষেত্রে উত্তম হচ্ছে ঘরে পড়া। এটাই রাসূলুল্লাহ আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে বর্ণিত। -হেদায়া ১/৩১৫-৩১৬

আল্লামা উমর ইবনে নুজাইম (১০০৫হি.) লেখেন,

ثم إنما يأتي بها بشرط أن يجد مكانًا عند باب المسجد، فإن لم يجد تركها، لأن ترك المكروه مقدم على فعل السنة، غير أن الكراهة تتفاوت، فإن كان الإمام في الصيفي فصلاته إياها في الشتوي أخف من صلاتها في الصيفي، وقلبه، وأشدها كراهة أن يصليها مختلطًا بالصف.

অর্থাৎ, জামাত চলাকালে সুন্নত পড়ার জন্য একটি শর্ত হচ্ছে মসজিদের দরজায় জায়গা থাকা। যদি সেখানে জায়গায় না থাকে তাহলে তা পড়বে না। কারণ সুন্নত আদায়ের চেয়ে মাকরূহ কাজ পরিত্যাগ করা অগ্রগণ্য। তবে মাকরূহের স্তরভেদ আছে। গরমকালের জন্য নির্দিষ্ট জায়গায় জামাত অনুষ্ঠিত হলে শীতকালের জন্য নির্ধারিত জায়গায় সুন্নত পড়া সেখানে পড়ার চেয়ে হালকা। এমনিভাবে এর উল্টো। আর সর্বাধিক মাকরূহ হচ্ছে জামাতের কাতারের সাথে মিলে পড়া। -আননাহরুল ফায়েক ১/৩১০-১১

শাব্বীর আহমদ উসমানী রাহ. (১৩৬৯হি.) লিখেছেন,

فجمع علماؤنا رحمهم الله بين فضل ركعتي الفجر وفضل الجماعة، وفضل الجماعة يحصل بإدراك الركعة مع الإمام، كما تقدم منصوصا في صحيح مسلم، من قوله صلى الله عليه وسلم: من أدرك ركعة من الصلاة مع الإمام، فقد أدرك الصلاة، وإذا لم يمكن الجمع بين الفضيلتين فرجحوا ما هو أشد تأكدا، وهي الجماعة، لورود الوعيد الشديد على تاركها، وركعتا الفجر وإن كانتا متأكدتين تأكدا يقرب من الوجوب فوق سائر النوافل والرواتب، إلا أنهما لم يرد في حق تاركهما ما ورد في تارك الجماعة.

অর্থাৎ, আমাদের আলেমগণ ফজরের সুন্নতের ফযীলত ও জামাতের ফযীলতের মধ্যে সমন্বয় করেছেন। ইমামের সাথে এক রাকাত পাওয়া দ্বারা জামাতের ফযীলত অর্জিত হয়ে যায়। হাদীসে ইরশাদ হয়েছে, যে ব্যক্তি ইমামের সাথে এক রাকাত নামায পেল সে পুরো নামাযই (ইমামের সাথে) পেল। আর যেখানে উভয় ফযীলতের মধ্যে সমন্বয় সম্ভব নয় সেখানে তারা এর চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় তথা জামাতকে অগ্রাধিকার দিয়েছেন। কারণ জামাত পরিত্যাগকারীর ব্যাপারে কঠোর সতর্কবাণী এসেছে। আর ফজরের সুন্নত যদিও গুরুত্বপূর্ণ-ওয়াজিবের কাছাকাছি এবং সকল সুন্নত-নফলের উপরে কিন্তু তা পরিত্যাগকারীর ব্যাপারে জামাত পরিত্যাগকারীর মত সতর্কবাণী আসেনি। -ফাতহুল মুলহিম বিশরহি সহীহিল ইমাম মুসলিম ৪/৯১

            মুফতী কিফায়াতুল্লাহ দেহলবী রাহ. (১৩৭২হি.) বলেন,

فجر  کی جماعت شروع  ہوجانے کے بعد کسی عليحدہ  جگہ میں سنتیں ادا کرنے کا موقع مل جائے  کہ سنت ادا کرکے فرض ایک رکعت مل سکے گی تم سنتیں ادا کرکے جماعت  میں شریک ہو، اور اگر کوئی  عليحدہ  جگہ میسرنہ ہو یا ایک رکعت فرض ملنے کی امید نہ ہو تو جماعت میں شریک ہو جائے.

অর্থাৎ, যদি জামাতের জায়গা থেকে পৃথক কোনো জায়গা থাকে এবং সুন্নত পড়ে ফরযের (অন্তত) এক রাকাত পাওয়া যাবে বলে মনে হয়, তাহলে সুন্নত পড়ে জামাতে শরীক হবে। কিন্ত যদি পৃথক কোনো জায়গা না থাকে কিংবা ফরযের এক রাকাতও পাওয়ার আশা নেই, তাহলে জামাতে শরীক হয়ে যাবে। -কিফায়াতুল মুফতী ৪/৫৫১

আরো দেখা যেতে পারে : তুহফাতুল ফুকাহা ১১৯৮; ফাতাওয়া সিরাজিয়া পৃ. ১১৭-১১৮; আলমুহীতুর রাজাবী (মাখতূত) প্রথম খ-, ওয়ারাকা ৪৫; বাদায়েউস সানায়ে ১/৬৩৯; আততাজনীসু ওয়াল মাযীদ ২/৪৬; শরহুল জামিইস সাগীর, কাজীখান (মাখতূত) প্রথম খ-, ওয়ারাকা ২৭; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ১/৬১-৬২; আননিহায়া ফী শরহিল হিদায়া (মাখতূত) প্রথম খ-, ওয়ারাকা ৯৬; গায়াতুল বায়ান ওয়ানাদিরাতুল আকরান (মাখতূত) প্রথম খ-, ওয়ারাকা ৯৩; আলবিনায়া ২/৫৬৯-৫৭২; মিনহাতুস সুলূক ফী শরহি তুহফাতিল মুলূক পৃ. ১৯৫-১৯৬; মাজমাউল আনহুর ফী শরহি মুলতাকাল আবহুর ১/২১০-২১১; ফাইযুল বারী ২/১৯৮; কিফায়াতুল মুফতী ৩/২৬২; ফাতাওয়া হাক্কানিয়া ৩/২৮৮; খাইরুল ফাতাওয়া ২/৪৯৩-৪৯৪; ফাতাওয়া কাসিমিয়া (শাব্বীর আহমদ কাসিমী মুরাদাবাদী) ৮/২১২; কিতাবুল ফাতাওয়া ২/৩৪৩-৩৪৫; তালিকুশ শায়েখ খালেদ সাইফুল্লাহ রাহমানী আলমুখতারাতিন নাওয়াযিল ১/৩০৬

পুনশ্চ : শুধু তাশাহহুদের মাঝে জামাতে শরীক হওয়ার সুযোগ পাওয়া যাবে, এমন হলে ফজরের সুন্নাত পড়বে কি না- কোনো কোনো হানাফী ফকীহ এক্ষেত্রেও পড়ার কথা বলেছেন। (দেখুন, ফাতাওয়া উসমানী, খ. ১পৃ. ৪৮৩)

তবে যে বিষয়ে খুব বেশি সতর্কতা দরকার তা হল, ইকামতের পর মজজিদের ভেতরে সুন্নত না পড়। জামাতের কাতারের সংগে মিশে বা তার কাছাকাছি তো নয়ই।

রমযানুল মুবারকে এ বিষয়ে খুব বেশি অবহেলা দেখা যায়; জামাতের কাতারে যুক্ত হয়ে অনেকে সুন্নত পড়েন। বিষয়টির এসলাহ হওয়া জরুরি।

বাকি থাকল ফজরের সুন্নতের কাযা প্রসঙ্গ। সেটা নিয়ে অন্য কোনো সময় আলোচনা হবে ইনশাআল্লাহ। -আবদুল মালেক

 

 

আরও পড়ুন:   দ্বীনিয়াত | নামায-সালাত

সম্মানিত পাঠক!
মাসিক আলকাউসারের ওয়েব পেজটির উন্নয়ন কাজ চলছে। তাই বর্তমান সংখ্যাটি হালনাগাদ করতে বিলম্ব হচ্ছে। আপনাদের সাময়িক অসুবিধার জন্য আমরা আন্তরিকভাবে দুঃখিত।

হজ্ব এবং কুরবানী বিষয়ক প্রবন্ধসমূহ