জুমাদাল উখরা ১৪৩৮ . মার্চ ২০১৭

পুরোনো সংখ্যা . বর্ষ: ১৩ . সংখ্যা: ০৩

একটি অনুচিত কাজ : মাসবুক মুসল্লির দিকে মুখ করে দ্রুত নামায শেষ করার তাগাদা দেওয়া

অনেক মানুষকে দেখা যায়, তার পেছনের মাসবুক মুসল্লিগণের কারণে যদি উঠে আসার সুযোগ না থাকে আর সে উঠে আসতে চায় তাহলে দাঁড়িয়ে বা বসে মাসবুক মুসল্লিদের দিকে মুখ করে থাকে বা তাকিয়ে থাকে। এটি একটি অনুচিত কাজ। এর দ্বারা আমার কারণে মুসল্লীর নামাযের মনোযোগ নষ্ট হয়।  

মাসবুক মুসল্লির নামায শেষ হতে কেবলমাত্র দুই/তিন মিনিট সময় লাগে। তা খুব বেশি সময় নয়। এটি একটি মানসিক বিষয় মাত্র- জামাত শেষ হয়ে গিয়েছে, আমাকে এখনই মসজিদ থেকে বের হতে হবে। উল্লেখ্য, নামায শেষে ওযুসহ নামাযের স্থানে বসে থাকাও তো অনেক ফযীলতের বিষয়; ফিরিশতাদের দুআ পাওয়া যায়। হাদীস শরীফে এসেছে-

المَلاَئِكَةُ تُصَلِّي عَلَى أَحَدِكُمْ مَا دَامَ فِي مُصَلَّاهُ الَّذِي صَلَّى فِيهِ، مَا لَمْ يُحْدِثْ، تَقُولُ: اللَّهُمَّ اغْفِرْ لَهُ، اللَّهُمَّ ارْحَمْهُ.

যে ব্যক্তি নামাযের পর যে স্থানে নামায পড়েছে ওযুসহ সেখানে বসে থাকে তার জন্য ফিরিশতা দুআ করতে থাকে; যতক্ষণ সে ওযু অবস্থায় থাকে। ফিরিশতারা বলে- হে আল্লাহ! তুমি তাকে ক্ষমা করে দাও, তার প্রতি রহম কর। -সহীহ বুখারী, হাদীস ৪৪৫

হাঁ, উঠে যাওয়ার  বিশেষ প্রয়োজন হলে সুতরা ব্যবহার করি। তা যদি না পাই তো একটু সবর করি। বসে তাসবীহ-তাহলীল পড়তে থাকি। আর ফিরিশতাদের দুআ তো পাচ্ছিই।

 

 

আরও পড়ুন:   একটি ভুল প্রচলন

সম্মানিত পাঠক!
মাসিক আলকাউসারের ওয়েব পেজটির উন্নয়ন কাজ চলছে। তাই বর্তমান সংখ্যাটি হালনাগাদ করতে বিলম্ব হচ্ছে। আপনাদের সাময়িক অসুবিধার জন্য আমরা আন্তরিকভাবে দুঃখিত।

হজ্ব এবং কুরবানী বিষয়ক প্রবন্ধসমূহ